সকালবেলা আমার উঠতে কষ্ট হয়। আমি নিশাচর প্রাণী। এখনো কলেজের ২য় বর্ষে পড়ি। এক জায়গায় রাতের পালাগান শুনে রাতের বেলা হোস্টেলে আসছিলাম। পথে একটা কবরের পাশ দিয়ে সাহস করে বাঁক নিতে পারলে পুরো দশ মিনিটের হাঁটা বাঁচানো যায়। আমি তাই করলাম। সবসময় করি না। আজকে করলাম। বাঁকের কাছে আসতেই কিছু একটার শব্দ শুনলাম। একবার মনে হলো সামনে আরেকবার মনে হলো পিছনে। যেদিক দিয়েই হোক আমার দিকেই এগিয়ে আসছে। আমি একটু চিন্তা করেই হাঁটতে লাগলাম। বাঁক পার হতে যাব এমন সময় ওপাশ থেকে কিছু একটা প্রায় হুমড়ি খেয়ে আমার উপর পড়ল। তারপর সে কবরের মোমের আলোতে আমার মুখ যতটুকু দেখল তাতেই বাবাগো বলে দাঁতকপাটি লেগে পড়ে গেল। মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল। আস্তে আস্তে হেঁটে আমার গত দেড়শ বছরের আস্তানা হোস্টেলের পিছনের মজা কুয়াটার ভিতরে দেয়ালের খোঁড়লটাতে ঢুকলাম।

হোস্টেলের দারোয়ানটা খুবই সাধাসিধে টাইপের মানুষ ছিল। এভাবে চলে যাওয়ার কোনো মানে হয়!

 

 পাঠকদের জন্য সুখবর!

অনলাইনে ডিজিটাল বাংলা  কমিক্স পড়ুন
ফ্রি-তে!

সদস্য রেজিস্ট্রেশন
close-link